প্রকাশের সময়:
মঙ্গলবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০৮:১৭:০০অপরাহ্ন

কাজের মেয়েকে ধর্ষণ—‘খালা-খালু’ কারাগারে

গ্রেপ্তার সিরাজ ও পিংকি

নিজস্ব প্রতিবেদক »

তমা (ছদ্মনাম) নামের পাঁচ বছরের এক শিশুকে আজ থেকে ১৫ বছর আগে তার এক নানী বাসার কাজের জন্য রেখে যান সিরাজের বাসায়। সেই নানীও রক্তের সম্পর্কের নানী ছিলেন না। তমা সিরাজ ও তার স্ত্রীকে খালা, খালু ডাকতেন। তমার বয়স যখন ১৩ তখনই সিরাজের নজরে পড়ে তমার বাড়ন্ত শরীর। শুরু হয় সিরাজের লীলা। নিয়মিত তমাকে ভোগ করতো গৃহকর্তা সিরাজ। 

তবে তমার শারীরিক পরিবর্তন থেকে অন্যদের নজর সরাতে তমাকে বিয়ে দেওয়ার নাটকও করেন। বিয়ের খবর চারদিকে চাওর হলেও তমার ঘর-সংসার করা হয়নি স্বামীর সাথে। তমাকে আগের মতোই ভোগ করেন সিরাজ।

সর্বশেষ গত ৫ জানুয়ারি সিরাজ তমাকে ভোগ করেন। তমা বিষয়টি সিরাজের স্ত্রী সাহেদা আক্তার পিংকিকে জানালে সিরাজ আর পিংকি মিলে তমাকে বাসা থেকে তাড়িয়ে দেয়। কাউকে ঘটনা বললে অবস্থা খারাপ হবে বলেও শাসায়।

এদিকে স্বামীর সংসার করা না হলেও তমার পেটে আসা সন্তান বেড়ে ওঠছে। তমা সন্তান নষ্ট করেনি। থানায় দায়ের করা অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে তমা বর্তমানে আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা। 

নগরীর পাহাড়তলী থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ সিরাজ ও পিংকিকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করে। তমাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করায়।

সিরাজ সন্দ্বীপের বাউরিয়ার ফজল হক চেয়ারম্যান বাড়ির মৃত রুহুল আমিনের ছেলে। স্ত্রী নিয়ে তিনি পাহাড়তলী থানার মাইট্টাইল্লা পাড়ার নাছির ভবনে বসবাস করতেন।

জানতে চাইলে পাহাড়তলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান মহানগর নিউজকে বলেন, ভিকটিম মেয়েটির বয়স ২০ বছর। তিনি আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা। মাত্র পাঁচ বছর বয়স থেকে সিরাজের বাসায় কাজ শুরু করেন। তার মা-বাপ কিংবা কোন আত্মীয় স্বজন বলতে কারো কোন পরিচয় বা ঠিকানা তিনি জানেন না।

তিনি আরও বলেন, ভিকটিমের অসহায়ত্বের সুযোগ নেওয়া এই দম্পত্তিকে আমরা আদালতে সোপর্দ করেছি। তার চিকিৎসার ব্যবস্থাও করেছি।

মহানগর নিউজ/এফএম/এসএ



আরও খবর